• ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৯ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

৪ কোটি টাকার ব্রিজে উঠতে হয় মই দিয়ে

sylhetnewspaper.com
প্রকাশিত জুন ৭, ২০২৪
৪ কোটি টাকার ব্রিজে উঠতে হয় মই দিয়ে

টাঙ্গাইল লৌহজং নদীর ওপর তিন বছর আগে প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় ব্রিজ। তবে ব্রিজের দুপাশে নামে মাটি। বিকল্প হিসাবে বাঁশের মই বেয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেতু পারাপার হলেও কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থাই নিচ্ছেনা। মাঝে মধ্যেই ঘটছে ছোট বড় দুর্ঘটনা।

জানা যায়, তিন বছর আগে সনি এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টাঙ্গাইল পৌরসভার কচুয়া ডাঙ্গা চরপাথলী এলাকায় লৌহজং নদীর উপর ব্রিজটি নির্মাণ করেন। টেন্ডারে বেধে দেয়া সময়মতো ব্রিজটির কাজ সম্পন্ন করলেও ব্রিজের দুপাশের সংযোগস্থলে অ্যাপ্রোচের মাটি ফেলছেন না। ফলে চলাচলের উপযোগী রাস্তা থাকা সত্ত্বেও এলাকাবাসীর কোনো কাজেই আসছে না ব্রিজটির। অকেজো অবস্থায় পড়ে থাকা ব্রিজটি ওপর বর্তমানে গোবর শুকানো হচ্ছে।

আবদুর রহিম নামে স্থানীয় এক বৃদ্ধ বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে দীর্ঘদিন ধরে বাঁশের সাঁকো দিয়েই স্থানীয়দের যাতায়াত করতে হতো। ব্রিজটি নির্মাণ কাজ করায় স্থানীয়দের দুঃখ দুর্দশা লাঘবের আশা করলেও ব্রিজটি এখন গলার কাটা হয়েছে। ব্রিজের সংযোগস্থলে মাটি ভরাট না করায় মই দিয়ে দিয়ে ব্রিজের উপরে উঠতে গিয়ে অনেকেই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। পৌরসভা কর্তৃক নির্মিত প্রায় ৪ কোটি টাকার ব্রিজ কোনো কাজে লাগছে না স্থানীয়দের।

কামরুল হোসেন নামে এক যুবক বলেন, কোনো ধরনের যানবাহন সেতুতে উঠতে না পারায় পণ্য পরিবহনেও নানা প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। এতে সাধারণ মানুষ ছাড়াও বিপাকে পড়েছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরাও। দ্রুত ব্রিজটি পুরোপুরি চালু করে যাতায়াতের সুব্যবস্থার দাবি স্থানীয়দের।

স্থানীয় কাউন্সিলর মেহেদী হাসান আলীম বলেন, এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ১০ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ পৌর শহরে চলাচল করে। সাধারণ মানুষের কষ্টের কথা স্বীকার করে ঠিকাদারের সঙ্গে একাধিকবার বসার চেষ্টা করলেও কোনো কাজ হয়নি।

এদিকে পৌর মেয়র এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন