• ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৬শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

জাফর ইকবালের উপর হামলা হত্যাচেষ্টা: ফয়েজের জামিনের আবেদন

sylhetnewspaper.com
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২১, ২০২১
জাফর ইকবালের উপর হামলা হত্যাচেষ্টা: ফয়েজের জামিনের আবেদন

জনপ্রিয় লেখক ও অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর হামলা ও হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি ফয়জুল হাসান ফয়েজের জামিন আবেদন করা হয়েছে।সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর)ফয়জুলের পক্ষে তার আইনজীবী জামিন আবেদন করেন। তবে আদালতে আসামি উপস্থিত না থাকায় জামিনের শুনানি হয়নি।

আদালত সূত্রে জানা যায়, সিলেটের সিলেটের সন্ত্রাস বিরোধী ট্রাইব্যুনালের বিচারক নুরুল আমিন বিপ্লবের আদালতে সোমবার চাঞ্চল্যকর এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ ছিলো। তবে সাক্ষীরা না আসায় সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি।সন্ত্রাস বিরোধী ট্রাইব্যুনালের এপিপি আব্দুল মজিদ মানিক জানান, আজ নির্ধারিত তারিখে সাক্ষীরা উপস্থিত ছিলেন না। তাই সাক্ষ্যগ্রহণও হয়নি। এছাড়া আসামি ফয়জুলের জামিন আবেদন করা হলেও তার শুনানি নয়নি।

আগামী সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখে জামিনের শুনানি হবে জানিয়ে তিনি বলেন, পরবর্তী শুনানির তারিখ ধার্য করা হয়নি।২০১৮ সালের ২ মার্চ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ভেতরে হামলার শিকার হন ওই বিশ্বববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে একটি অনুষ্ঠান চালাকালে ছুরি দিয়ে তার ঘারে কুপ দেয় ফয়জুল হাসান ফয়েজ। ঘটনাস্থল থেকেই তাকে হাতেনাতে আটক করে শিক্ষার্থীরা।

এ ঘটনায় শাবিপ্রবির রেজিস্টার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন জালালাবাদ থানায় একটি হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন। পরে ওই বছরের ২৬ জুলাই মামলাটির তদন্তের দায়িত্বে থাকা জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম ৩৫৩ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্র জমা দেন।

এ মামলায় ড. জাফর ইকবালের উপর হামলায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত উল্লেখ করে ৬ জন অভিযুক্ত করা হয়। এরা হলেন- ফয়জুল হাসান ফয়েজ, ফয়েজের বন্ধু মো. সোহাগ মিয়া, ফয়েজের বাবা হাফেজ মাওলানা আতিকুর রহমান, মা মোছাম্মৎ মিনারা বেগম, মামা মো. ফজলুর রহমান এবং ফয়েজের ভাই এনামুল হাসান।

এদের সবাইকে বিভিন্ন সময়ে গ্রেপ্তার করা হলেও ফয়জুল হাসান ফয়েজ ছাড়া বাকি সবাই জামিনে আছেন বলে জানান আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ বাবুল মিয়া।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •