• ১৯শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১৩ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

মেয়র আরিফের পলিটিক্যাল ‘ইউটার্ন’

sylhetnewspaper.com
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১
মেয়র আরিফের পলিটিক্যাল ‘ইউটার্ন’

সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের গণ্ডারের সঙ্গে তুলনা করে ছিলেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

এমন মন্তব্যের জেরে সিলেট আওয়ামী লীগ নেতাদের তোপের মুখেও তাকে পড়তে হয়েছিল।

আরিফের এই ‘বেফাঁস মন্তব্যকে ঘিরে আওয়ামী লীগের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে বাজেট বক্ত্যব্য প্রদানকালে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের প্রশংসায় ভাসিয়েছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন,এটি মেয়রের পলিটিক্যাল ইউটার্ন।

আজ বৃহস্পতিবার(১৬ সেপ্টেম্বর)দুপুরে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী নগরের একটি কনভেনশন হলে সিসিকের বাজেট ঘোষণা অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের প্রশংসা করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত,পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.এ কে এম আব্দুল মোমেন এমপি’র প্রশংসা করেন মেয়র।

এছাড়া অনুষ্ঠানে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র প্রয়াত মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সদ্যপ্রয়াত লুৎফুর রহমানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের শ্রদ্ধার সঙ্গে’ স্মরণ করেন মেয়র আরিফ।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে মেয়র স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম এমপি,পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি,বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি,বন ও পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপি, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলীসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের প্রশংসা করেন।

এই মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীরা সিলেটের উন্নয়নের জন্য নিবেদিতপ্রাণ বলে উল্লেখ করে মেয়র বলেন,সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকার যে কোনো সমস্যা সমাধানে কিংবা উন্নয়ন বিষয়ে তাঁর আন্তরিকতা আমাদেরকে মুগ্ধ করেছে।

করোনা মহামারি মোকাবেলায়,বিশেষ করে করোনার টিকা বাংলাদেশে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে তিনি যে ক্যারিশমেটিক সফলতা দেখিয়েছেন,তা সিলেটবাসী হিসেবে আমাদেরকে গর্বিত করেছে।

বাজেট অনুষ্ঠানে মেয়র আরিফ পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের প্রশংসা করে বলেন,সিলেটের আরেক সুসন্তান,গুণী ব্যক্তিত্ব এম এ মান্নান এমপি সিলেট সিটি করপোরেশনের অন্যতম শুভাকাঙ্ক্ষী হিসেবে সর্বদা সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

কেবলমাত্র পরিকল্পনামন্ত্রী হিসেবে নন,একজন সিলেটদরদি ব্যক্তিত্ব হিসেবে তাঁর ভূমিকা মহানগরের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে আরও বেগবান করছে।

এ সময় মেয়র আরিফ সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল মুহিতের সুস্থতা কামনা করে বলেন,আমার আরেকটি সৌভাগ্য, আমার প্রথম মেয়াদে মেয়র হিসেবে দায়িত্বগ্রহণের শুরু থেকেই সিলেট মহানগরের উন্নয়নে নিবেদিতপ্রাণ ব্যক্তিত্ব,সর্বজন শ্রদ্ধেয় রাজনীতিবিদ,সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত মহোদয়ের আন্তরিক সহযোগিতা পেয়েছি।তাঁর উদারতা,কর্মনিষ্ঠা,সততা আমাদের জন্য উদাহরণস্বরূপ।

অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, সিলেটের রাজনীতিতে আলাদা এক সম্প্রীতি আছে। সিলেটের রাজনীতিতে উন্নয়নে বাধামূলক কোনো কাজ নেই। সম্প্রতি মৌলভীবাজারে যে বক্তব্যে দিয়েছি,তার ভুল ব্যাখ্যা তৈরি করা হয়েছে। রাজনৈতিক বক্তব্য অনেক ধরনেরই হতে পারে। সেটাকে অন্যভাবে নেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

এদিকে,সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর এমন প্রশংসামূলক বক্তব্যকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসাইন।

তিনি বলেন, মেয়র আরিফ সুবিধাবাদী লোক। তিনি মৌলভীবাজারে একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত,পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.এ কে আব্দুল মোমেন মহোদয়ের নেয়া নানা প্রকল্প সম্পর্কে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য পরিবেশন করেন।

পরে সিলেট মহানগরের মানুষ এসব অসত্য তথ্য পরিবেশনমূলক বক্তব্যের প্রতিবাদ শুরু করেন। এজন্য হয়তো এখন মেয়র আরিফ নিজের ভুল বুঝতে পেরে সঠিক তথ্য উপস্থাপনা করেছেন। আমরা আশা করব তিনি নগরবাসীকে উন্নয়ন সম্পর্কে সঠিক তথ্য দেবেন।

একই সঙ্গে বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের নামফলকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ের নাম রাখবেন।

প্রসঙ্গত,গত ৫ সেপ্টেম্বর এম সাইফুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীর দিনে মৌলভীবাজারে অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী আওয়ামী লীগ সরকারের সমালোচনা করে বলেছিলেন,এদের চামড়া এত শক্ত হয়েছে যে গণ্ডারের চামড়া থেকে আরও বেশি।

এদের গায়েও কিছু লাগে না। আর ওই বক্তব্যের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার শুরু করেন তার অনুসারীরা।

পাশাপাশি মেয়র আরিফুল হকের এমন বক্তব্যের প্রতিবাদ শুরু করেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক বিবৃতিও দেয় সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন