• ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৬শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

টিকা পেতে ধৈর্য ধরতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

sylhetnewspaper.com
প্রকাশিত আগস্ট ১২, ২০২১
টিকা পেতে ধৈর্য ধরতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

পর্যায়ক্রমে সকলেই টিকা পাবেন জানিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, টিকা পেতে ধৈর্য ধরতে হবে। এ মাসের মধ্যেই এক কোটি ডোজ টিকা আসবে বলেও জানান মন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে দেশের করোনা ও ডেঙ্গু সংক্রমণ নিয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

জাহিদ মালেক বলেন, সারাদেশে আমাদের টিকা কার্যক্রম চলছে। এটি চলমান থাকবে। এক সপ্তাহের মধ্যে ৫৪ লাখ ডোজ টিকা আসবে। পরের মাসে আবার ৫০ লাখ ডোজ আসবে। সবমিলিয়ে এ মাসেই এক কোটি ডোজ টিকা আসবে।

তিনি বলেন, পৌনে দুই কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। কোটি কোটি লোক নিবন্ধন করেছে। সবারই টিকা প্রয়োজন। ২৬-২৭ কোটি টিকা লাগবে। আমরা চেষ্টা করছি। পর্যায়ক্রমে সবাই টিকা পাবেন, ধৈর্য ধরতে হবে।

জাহিদ মালেক বলেন, টিকা নিয়ে আন্তর্জাতিক রাজনীতি চলছে। বড় বড় দেশগুলো তাদের জনসংখ্যার চার-পাঁচ গুণ বেশি টিকা মজুত করেছে, আমরা সাধ্যমত কিনে আনার চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার ওপর চাপ কমাতে সংক্রমণের উৎস বন্ধ করতে হবে। করোনা নিয়ন্ত্রণ না করলে কঠিন পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে। করোনা নিয়ন্ত্রণ না হলে অর্থনীতি খারাপ হবে। করোনা নিয়ন্ত্রণ না করতে পারলে মৃত্যু বাড়বে, অর্থনীতি ভেঙে পড়বে। দরিদ্রতা বাড়বে। কর্মহীন হয়ে পড়বে মানুষ।

‘সংক্রমণ কমে আসছে, মৃত্যু হার আরও কমাতে হবে। সবার সহযোগিতা প্রয়োজন’, যোগ করেন মন্ত্রী।

জাহিদ মালেক আরও বলেন, সিনোফার্মের ৬ কোটি টিকার বিষয়ে সপ্তাহ খানেক আগে প্রধানমন্ত্রী থেকে অনুমোদন নিলাম। আশা করি টিকার সংকট হবে না। সবার আগে চিকিৎসক-নার্সসহ যারা ফ্রন্টলাইনার তাদের টিকা দিতে হয়েছে। আমরা ছাত্রদের জন্য টিকার ব্যবস্থা করেছি। গর্ভবতী মায়েদের জন্যও টিকার ব্যবস্থা করেছি।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ সোসাইটি অব মেডিসিনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ বিল্লাল।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন- স্বাস্থ্য সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবুল বাশার খুরশীদ আলম, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •